খুঁজুন
মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই, ২০২৪, ৮ শ্রাবণ, ১৪৩১

মুক্তাগাছায় পৌণে ২ কোটি টাকার চাল পায়নি তদন্ত কমিটি : প্রকাশ্যে এলো দুর্নীতি 

সময় ৭৫ টিভি ডেস্ক রিপোর্ট।।
প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২৩, ২:৪৪ পিএম
মুক্তাগাছায় পৌণে ২ কোটি টাকার চাল পায়নি তদন্ত কমিটি : প্রকাশ্যে এলো দুর্নীতি 

ময়মনসিংহের আলোচিত মুক্তাগাছা খাদ্য গুদামে ৩২৮ টন ৯৮০ কেজি চাল পায়নি ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি। প্রকাশ্যে এলো দুর্নীতি। সরকারের অর্থনৈতিক মূল্য অনুযায়ী উল্লেখিত চালের দাম ১ কোটি ৭০ লাখ ৭২ হাজার ২৮২ টাকা। গুদাম পরিমাপের সময় পাওয়া যায়নি ৮৯ হাজার ৭০০ টাকা মূল্যের ৩০ কেজির ১৪৯৫টি ও ৩০ হাজার ৪০০ টাকা মূল্যের ৫০ কেজির ৩৮০টি খালি বস্তা। বিষয়টি জানাজানি হলে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

 

কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অনুযায়ী উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক রেবেকা সুলতানা রুবী কঠোর গোপনীয়তায় মঙ্গলবার বিকালে মুক্তাগাছা থানায় মামলা দায়ের করেন।

 

মঙ্গলবার গোপন থাকলেও বুধবার মামলা দায়েরের খবর ছড়িয়ে পড়ে। মামলায় আসামি করা হয়েছে পালিয়ে যাওয়া খাদ্য পরিদর্শক ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাকিল আহমেদকে। অপরাধমূলক বিশ্বাস ভঙ্গ করে সরকারি সম্পদ আত্মসাত করার ৪০৯ ধারায় দায়ের করা মামলাটি দুদক তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবে বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে। আলোচিত মামলাটি আপাতত মুক্তাগাছা শহর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মোঃ শফিকুল ইসলাম তদন্ত করছেন।

 

গত মাসের শেষ দিকে ধরা পড়ে মুক্তাগাছা খাদ্য গুদামের চাল আত্মসাতের ঘটনা। ২০১৯ সালেও ঘটে একই ঘটনা। ৫০০ টন চাল কেলেঙ্কারী নিয়ে তোলপাড় হয়েছিলো। নিম্নমানের পুরাতন চাল কিনে মজুদ, মিল মালিকদের সাথে প্রতারণা ও জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে তখন ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়া হয়। ওই ঘটনার বিচার না হওয়ায় এবং দুর্নীতিবাজদের লাগাম না টানার কারণে এ ধরণের ঘটনার পুনরাবৃত্তি হয়েছে বলে অপরাধ বিশেষজ্ঞরা মত প্রকাশ করেছেন।

 

গুদামে চালের মজুদ না দেখেই বিল প্রদান করে সরকারি টাকা আত্মসাতের সহযোগিতা করা উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক রেবেকা সুলতানা রুবী বুধবার পর্যন্ত বহাল তবিয়তে ছিলেন। কর্তৃপক্ষ তাকে দিয়েই ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করান। মুক্তাগাছার এ ঘটনার দায় এড়াতে পারেন না গুদামের অন্যান্য স্টাফ, ময়মনসিংহের কারিগরী খাদ্য পরিদর্শক, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক, জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক। তাদের বিরুদ্ধেও পর্যায়ক্রমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে খাদ্য অধিদপ্তরের দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে।

 

জানা যায়, মুক্তাগাছা থানায় দায়ের করা মামলার এজাহারে ত্রুটি রয়েছে। মামলা রেকর্ডের আগে ২ বার এজাহার পাল্টানো হয়। চাল ও খালি বস্তা আত্মসাতের তারিখ দেখানো হয়েছে ০৯-০৩-২০২১ থেকে ১৭-১০-২০২৩ তারিখ সন্ধ্যার মধ্যে যেকোনো সময়।

 

গুদামের মজুদ অনুযায়ী ২ মাস আগে শেষ হওয়া বোরো চাল আত্মসাত করা হয়। আত্মসাতের ঘটনা দেখানো হয় ২ বছর ৭ মাসের যেকোনো সময়। অথচ গুদামে পুরাতন কোনো চাল মজুদ ছিলো না। শাকিলের যোগদান থেকে পালিয়ে যাওয়ার তারিখ পর্যন্ত আত্মসাত দেখানো হাস্যকর এবং আইনের ফাঁক-ফোকর তৈরী করা ছাড়া আর কিছুই নয়। অপরদিকে ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি অদৃশ্য কারণে

 

কঠোর গোপনীয়তায় দীর্ঘ ২৭ দিন গুদামের চাল পরিমাপ করে। রহস্যজনক কারণে তারা কর্তৃপক্ষের দোহাই দিয়ে সাংবাদিকদের এড়িয়ে চলেন। রিপোর্ট জমা দেওয়ার পরও কেউ মুখ খুলছেন না। কঠোর গোপনীয়তার কারণে নানান প্রশ্ন সৃষ্টি হয়েছে।

 

গৌরীপুরের উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম কমিটির প্রধান ছিলেন। ত্রিশালের উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ইলিয়াস আহমেদ, ফুলপুরের উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আতিকুর রহমান, জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অফিসের উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক (কারিগরী) নুসরাত বিনতে আনিস ও খাদ্য পরিদর্শক মোঃ শিব্বির আহাম্মদ সদস্যের দায়িত্ব পালন করেন। তদন্ত কমিটির প্রধানের বিরুদ্ধেও অভিযোগ রয়েছে। ২৪-০৮-২০২০ থেকে ০২-১০-২০২২ তারিখ পর্যন্ত তিনি মুক্তাগাছা উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের দায়িত্বে ছিলেন। দুর্নীতিবাজ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাকিল আহমেদ ১ বছর ৭ মাস তার অধীনে চাকরি করেন। তখনই তিনি অতিমাত্রায় দুর্নীতিতে জড়ান।

 

সূত্র জানায়, মুক্তাগাছা খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাকিল আহমেদ চাবি নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার ১৪ দিনের মাথায় ২৫ অক্টোবর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রোমানা রিয়াজ গুদামের তালা ভেঙে দিলে ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি চাল পরিমাপ শুরু করে। ২৭ দিনের মাথায় রবিবার গুদামের চাল পরিমাপ ও গুণগত মান যাচাইয়ের কাজ শেষ হয়। আত্মসাতের বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার প্রাণান্ত অপচেষ্টা চালানো হয়।

 

সূত্র মতে, ২ নম্বর গুদামের ১২টি খামাল ও পেসেজে (করিডোর) থাকা চালের পরিমাপ ৭ নভেম্বর শেষ হয়। পরদিন শুরু হয় ১ নম্বর গুদামের চাল পরিমাপ। রবিবার ১ নম্বর গুদামের ১২টি খামাল ও পেসেজের (করিডোর) চাল পরিমাপের কাজ শেষ হয়েছে।

 

সোমবার নতুন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে গুদামের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেওয়া হয়। কমিটি কঠোর গোপনীয়তায় সোমবার রাতে কর্তৃপক্ষের কাছে তদন্ত রিপোর্ট জমা দেয়। কয়েক টন নিম্নমানের চাল পাওয়া গেলেও কমিটি রিপোর্টে উল্লেখ করেনি।

 

২ গুদামের ২৪টি খামালের মধ্যে কয়েকটি খামালের মাঝামাঝি খাড়া করে বস্তা রেখে মজুদ সঠিক থাকার অভিনব কায়দা করা হয়েছিলো। মজুদ অনুযায়ী ২ হাজার টন ধারণ ক্ষমতার মুক্তাগাছা খাদ্য গুদামে ৩ হাজার ৩৭৯ টন চাল থাকার কথা ছিলো। ২ মাস আগে শেষ হওয়া বোরো সংগ্রহ মৌসুমে মুক্তাগাছা খাদ্য গুদামে ১৫ হাজার ৪৭২.৮৩০ টন চাল সংগ্রহ করা হয়।

 

মূল বরাদ্দ ১৩ হাজার ৮৪৭.৯১০ ও অতিরিক্ত বরাদ্দ ১ হাজার ৬২৪.৯২০ টন। ধারণা করা হচ্ছে, অতিরিক্ত বরাদ্দের ৩০০ টন চাল সরবরাহ না নিয়েই মিল মালিক ও উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের যোগসাজশে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাকিল বিল উত্তোলন করান। একই সময় অন্য যেকোনো মিলারের কাছ থেকে ২৯ টন চাল সরবরাহ না নিয়েই বিল উত্তোলন করানো হয়।

জানা যায়, ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসেও ময়মনসিংহের আলোচিত মুক্তাগাছা খাদ্য গুদামে ৫০০ টন চাল কেলেঙ্কারীর ঘটনা ঘটে। মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া শুরু হলে তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কর্ণেলিউস চিসিম ঝামেলা মিটিয়ে ফেলেন।

 

১৮০ টন নিম্নমানের চাল কিনে মজুদ, অতিরিক্ত বরাদ্দের কথা বলে মিল মালিকদের কাছ থেকে ২০০ টন চাল সংগ্রহ ও কম দামে ডিও’র ১২০ টন চাল কিনে মজুদ পুর্ণ করেন। প্রতারণার শিকার মিলারদের চালের বিল না দেওয়ায় সালিস হয়। কর্ণেল স্ট্যাম্পে লিখিত ও চেক প্রদান করেন। টাকা পরিশোধ না করায় বিসমিল্লাহ অটো রাইস মিলের মালিক মোঃ শুকুর আলী ও রাহাত অটো রাইস মিল-১ ও ২ এর মালিক মোঃ আব্দুস সাত্তার কর্তৃপক্ষ বরাবর লিখিত অভিযোগ এবং চেক ডিজঅনার করিয়ে আদালতে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া করেন।

 

কর্ণেল টাকা পরিশোধ করে মামলা থেকে রক্ষা পান। তিনি ১৭-১১-২০১৬ থেকে ১৯-০২-২০১৯ তারিখ পর্যন্ত মুক্তাগাছায় কর্মরত ছিলেন। ৭ মাস অন্যত্র থাকার পর ০৬-০৯-২০১৯ তারিখে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে বগুড়ার দুপচাঁচিয়া খাদ্য গুদামে যোগদান করেন।

 

বদলি নীতিমালা লঙ্ঘন করে ৩ বছর ২ মাস দুপচাঁচিয়া অবস্থানের মাথায় ২০২২ সালের অক্টোবর মাসের শেষ দিকে কর্ণেল হঠাৎ অসুস্থ হন। কর্তৃপক্ষ গুদাম সিলগালা করে কমিটি দিয়ে পরিমাপ করান। ১১০ টন বোরো চাল কম থাকার ঘটনা ধরা পড়লে ভিন্ন কায়দায় বিষয়টি মিটিয়ে ফেলা হয়। কমিটি ০৭-১১-২০২২ তারিখে মোঃ শফিউল ইসলামকে গুদামের দায়িত্ব দেয়। ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় যোগদানের আগে কর্ণেল নরসিংদীর রায়পুরা খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ছিলেন। দায়িত্ব হস্তান্তরের সময় সেখানেও ১০০ টন চাল ও বিপুল পরিমাণের খালি বস্তা কম পাওয়া যায়। এ নিয়ে চলে তোলপাড়।

 

এক পরিবহন ঠিকাদারের সহযোগিতায় সে যাত্রায় তিনি রক্ষা পান। ঠিকাদারের টাকা পরিশোধ করেন নি কর্ণেল। শেরপুরে বাড়ি ওই ঠিকাদার পাওনা টাকার জন্য কয়েকবার মুক্তাগাছায় হানা দেন। সূত্র মতে, কর্ণেলিউস চিসিম মুক্তাগাছায় কর্মরত থাকার সময় মুসলমানদের দাড়ি নিয়ে ফেসবুকে বিরূপ মন্তব্য করে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হেনে বেকায়দায় পড়েন। খাদ্য অধিদপ্তরের সংস্থাপন শাখা তাকে কৈফিয়ত তলব করে। মদ খাওয়া নিয়েও ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে তিনি চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেন।

 

মুক্তাগাছা খাদ্য গুদামে সংঘটিত অনিয়ম ও দুর্নীতির সাথে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক রেবেকা সুলতানা রুবী জড়িত বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে। তার যোগসাজশেই ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাকিল লাগামহীন অনিয়ম ও দুর্নীতি করেন। রুবী তার স্বামী খাদ্য অধিদপ্তরের সিস্টেম এনালিষ্টকে দিয়ে তদবির করিয়ে ০২-১০-২০২২ তারিখে মুক্তাগাছায় যোগদান করেন।

 

এর আগে ময়মনসিংহের ত্রিশালে কর্মরত ছিলেন। গুদামে চালের মজুদ নিশ্চিত না হয়েই বিল প্রদান করে তিনি বখরা আদায় করেন। অন্যদিকে মুক্তাগাছার সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করেন সিন্ডিকেট প্রধান মোঃ আব্দুল হালিম। তার মালিকানায় ‘হালিম রাইস এন্ড ফ্লাওয়ার মিল’ থাকলেও শাসন করেন ২৫টি রাইস মিল। নিয়ন্ত্রণ করেন মুক্তাগাছা খাদ্য গুদামের সকল কর্মকাণ্ড।

 

কাবিখা, ভিজিডি, ভিজিএফ, খাদ্য বান্ধব, ওএমএস এবং রেশনের সকল চাল তার মাধ্যমে বিতরণ করতে হয়। গুদাম থেকে চাল বিতরণ দেখিয়ে আবারো তা মজুদ করে বোরো ও আমন সংগ্রহ দেখানোর পর কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেন। গুদামের সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা ও প্রযুক্তির সহযোগিতা নিলেই অনেক প্রমাণ এবং তথ্য পাওয়া যাবে। সংযুক্ত থাকা সহকারী উপ খাদ্য পরিদর্শক তুহিন গুদামের মজুদ থেকে শুরু করে সব কিছুর দেখভাল করতেন।

 

শাকিল তার ওপর শতভাগ নির্ভর করতেন। মিলারদের কাছ থেকে চাল রিসিভ, বিল প্রস্তুত, ডিও ডেলিভারী সব কিছুই হতো তুহিনের হাত দিয়ে। এ সুযোগে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা। শাকিল পালানোর আগেই তুহিন বিষয়টি বুঝতে পারেন। তড়িঘড়ি মূল কর্মস্থল ময়মনসিংহ সিএসডিতে ফেরত আসেন। মোটা অংক দিয়ে খাদ্য অধিদপ্তরে তদবির করে টাঙ্গাইলে বদলি হন। পোস্টিং নেন বাড়ির কাছের ধনবাড়ি খাদ্য গুদামে। ধুরন্ধর তুহিন বন্ধ রেখেছেন মোবাইল ফোন। তার গ্রামের বাড়ি মধুপুরে। অজপাড়াগাঁওয়ের কৃষক পরিবারের সন্তান তুহিন অনিয়ম, দুর্নীতি ও আত্মসাতের টাকায় বাড়িতে নির্মাণ করছেন বহুতল ভবন।

বান্দরবানের পর্যটন বিকাশের লক্ষ্যে গণমাধ্যমকে একযোগে কাজ করার আহ্বান -আপেল মাহমুদ

সোহাগ আরেফিনঃ
প্রকাশিত: বুধবার, ১৭ জুলাই, ২০২৪, ৪:২১ এএম
বান্দরবানের পর্যটন বিকাশের লক্ষ্যে গণমাধ্যমকে একযোগে কাজ করার আহ্বান -আপেল মাহমুদ

বান্দরবানের পর্যটন বিকাশের লক্ষ্যে গণমাধ্যমকে একযোগে কাজ করার আহ্বান -আপেল মাহমুদ

রুপের রানী বান্দরবানের পর্যটক স্পট গুলো থেকে সন্ত্রাসীদের অপরাধ দমন ও পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য প্রত্যেকটি পর্যটন কেন্দ্রে ট্যুরিস্ট পুলিশের ফোর্স বাড়ানো হবে। সেই সাথে বিভিন্ন স্থানে সিসি ক্যামেরার পাশাপাশি দিনের বেলায় ড্রোন ক্যামরা দিয়ে পর্যবেক্ষণের আওতায় নিয়ে এসে বান্দরবানকে স্মার্ট পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হবে।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) সকালে জেলা পরিষদ সভা কক্ষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন নবাগত ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি আপেল মাহমুদ।

অতিরিক্ত ডিআইজি আপেল মাহমুদ বলেন, স্মার্ট নিরাপত্তা জোরদার করতে ট্যুরিস্ট পুলিশের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পর্যটন স্পট থেকে পর্যটকরা যেন সরাসরি পুলিশের সেবা পেতে পারেন সেজন্য ইন্টারকম ও ইমার্জেন্সি বাটন স্থাপন করা হবে। বাটনে চাপ দিলে বেল বেজে উঠবে এবং তা শোনার সঙ্গে সঙ্গে হাজির হবে ট্যুরিস্ট পুলিশের টিম। যাতে চুরি, ছিনতাই, হারিয়ে যাওয়া জিনিসপত্রসহ একাধিক বিষয়ে সেবা নিশ্চিত করতে পুলিশের এই ব্যতিক্রম উদ্যোগ।

আপেল মাহমুদ আরো বলেন, টুরিস্ট পুলিশ বান্দরবান এর প্রতিটি পর্যটন কেন্দ্রে সকল প্রকার নিরাপত্তা জোরদার করতে আমরা সবসময় বদ্ধপরিকর।

স্পট গুলোতে কেউ নাশকতা বা চুরি ছিনতাই কবলে পরলে ইমার্জেন্সি কল সেন্টার থেকে সরাসরি সেবা গ্রহণ করতে পারবেন।

নির্দিষ্ট স্থানে দেওয়া বাটনে ক্লিক করলেই মুহূর্তের মধ্যেই পাওয়া যাবে পর্যটনসেবা।

স্তরে স্তরে পর্যটকদের জন্য সব ধরনের পরিকল্পনা গ্রহন করেছে ট্যুরিস্ট পুলিশ। এছাড়াও ভিন্ন পয়েন্টে ইন্টারকম ও ইমার্জেন্সি বাটন স্থাপন করা পরিকল্পনা গ্রহন করা হয়েছে। এর মাধ্যমে পর্যটকরা ট্যুরিস্ট পুলিশের কাছে অভিযোগ করতে পারবেন। একজন পর্যটক যেকোনো দুর্ঘটনা বা অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার কবলে নিজে পড়ুক বা অন্য কারও সমস্যা দেখতে পেয়ে শুধু একটা বাটনে ক্লিক করলেই ট্যুরিস্ট পুলিশ পৌঁছে যাবে সেখানে। তাই পর্যটন বিকাশে অগ্রগতির করার লক্ষ্যে একযোগে কাজ করার জন্য গণমাধ্যমকে পাশে থাকার আহ্বান তিনি।

“অভিভাবকহীন সন্তানদের থেকে রাষ্ট্রও যেন মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে”

সিনিয়র সাংবাদিক সাঈদুর রহমান রিমনঃ
প্রকাশিত: বুধবার, ১৭ জুলাই, ২০২৪, ৪:০২ এএম
“অভিভাবকহীন সন্তানদের থেকে রাষ্ট্রও যেন মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে”

“অভিভাবকহীন সন্তানদের থেকে রাষ্ট্রও যেন মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে”

বৈষম্যের মাধ্যমে সৃষ্ট বঞ্চনা, নিপীড়নের ‘কোটা বিরোধী’ যৌক্তিক ও শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে নেমেছে লাখ লাখ শিক্ষার্থী। তারা আমাদেরই সন্তান। রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে রাষ্ট্র আরোপিত অন্যায্যতার প্রতিবাদ জানাচ্ছে।

অনিশ্চিত ভবিষ্যতের চিন্তায় দিশেহারা শিক্ষার্থীরা বৈষম্য বিরোধী যে আন্দোলন সংগ্রাম শুরু করেছে সেখানে তারা অভিভাবকহীন। মিছিলের স্লোগান কী হওয়া উচিত- তা ঠিক করে দেয়ার মতো পরামর্শকও নেই তাদের। সে আন্দোলনে কোনো রাজনৈতিক ছায়া নেই, ভিনদেশি চক্রান্তেরও কোনো ছোঁয়া পড়েনি। সরকার, রাষ্ট্র, মহান মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করা তাদের লক্ষ্য উদ্দেশ্য নয়। এ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে কেউ নেতা হয়ে উঠছে না, রাষ্ট্র ক্ষমতায় ভাগ বসানোরও কেউ নেই।

ন্যায্যতা প্রাপ্তির আর্তিকে স্লোগানে রুপ দিয়ে তারা রাস্তায় দাঁড়িয়েছে। বঞ্চিতরা বিনয়ে গদগদ হওয়ার পরিবর্তে হয়তো কথা বলছে প্রতিবাদী ভাষায়। এসব আন্দোলন, সংগ্রাম, বিক্ষোভ-প্রতিবাদ তো বাঙালিদের বীরত্বগাঁথা ঐতিহ্যেরই অংশ। তা সত্তেও কোমলমতি শিক্ষার্থীদের অহিংস আন্দোলনে সশস্ত্র প্রতিরোধের নৃশংসতা কেন? কেন ছাত্র-ছাত্রীদের রক্তে রঞ্জিত হবে ক্যাম্পাস থেকে রাজপথ? অতি সাধারণ দাবির কারণে কেন বইতে হবে লাশের ওজন? কেনইবা রাজাকারের ঘৃণ্য তকমা তাদের ললাটে এঁকে দিতে হবে?

আন্দোলন সংগ্রামের জ্বলন্ত অগ্নিশীখা থেকে জন্ম নেওয়া ঐতিহ্য গৌরবের ছাত্রলীগ হঠাত শিক্ষার্থীদের মুখোমুখি দাঁড়ালো কেন সে হিসেব অনেকেই মেলাতে পারছেন না। কোটা বিরোধী চলমান আন্দোলন নিশ্চিহ্ন করতে ছাত্রলীগকে যে কোনো পর্যায়ের বর্বরতা চালানোর নির্দেশটা এলো কোত্থেকে? আদালতের সিদ্ধান্তেই কোটা’র ভাগ্য নির্ধারন হোক কিংবা সে বিষয়ে সরকারের বিশেষ সহমর্মিতা থাকুক না থাকুক- সেই ব্যাপারে আমার মতামত প্রকাশে মোটেও উৎসাহ নেই আমার। তবে শান্তিপূর্ণ একটি আন্দোলনে দমন পীড়ন চালিয়ে ক্ষোভ আর ঘৃণার পাহাড় সৃষ্টির বিপক্ষে আমি। উন্নয়ন জোয়ারের দাবিদার দেশটিতে এহেন অপকর্মের খুবই কী দরকার ছিল?

একক জনপ্রিয়তার একতরফা শাসন ব্যবস্থায় বোবা-বধিরে রুপান্তরিত কোটি কোটি অভিভাবক জীবদ্দশাতেই নিজ সন্তানদের অসহায়ত্ব দেখতে পাচ্ছেন। দেখছেন, এ সন্তানদের পাশে কেউ দাঁড়াচ্ছে না। সচেতন দাবিদার পন্ডিতবর্গ, সুশীল সমাজ, সিনিয়র সিটিজেন কিংবা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারী সম্মানীত নাগরিক, গর্বের প্রতীক- কেউ তাদের পাশে যায়নি, কেউ-ই না। অভিভাবকহীন লাখ কোটি সন্তানদের থেকে রাষ্ট্রও যেন মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে…

রাজশাহীতে এটিএন বাংলার সাংবাদিক সুজাউদ্দিন ছোটন বিরুদ্ধে হয়রানী মূলক মামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

রাকিবুল হাসান আহাদঃ
প্রকাশিত: সোমবার, ১৫ জুলাই, ২০২৪, ৭:১৬ পিএম
রাজশাহীতে এটিএন বাংলার সাংবাদিক সুজাউদ্দিন ছোটন বিরুদ্ধে হয়রানী মূলক মামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

রাজশাহীর তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে মর্যাদার সঙ্গে সাংবাদিকতায় যুক্ত থাকার এটিএন বাংলার সিনিয়র রিপোর্টার সুজাউদ্দিন ছোটনকে পূর্ব আক্রোশের জের ধরে চাঁদাবাজি ও যৌন হয়রানির মিথ্যা মামলা দায়েরের গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। ছোটনের প্রতিবেদনে শাস্তি পাওয়া এক পুলিশ কর্মকর্তা নেপথ্য ইন্ধন দিয়ে নিজেরই সোর্স ব্যবহার করে তাকে এ মামলায় ফাঁসিয়েছেন বলে তথ্য বেরিয়েছে।

বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএমইউজে) অবিলম্বে সাজানো এ মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করাসহ
মামলাবাজ চক্রটির ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে।

আজ (১৫ জুলাই, ২০২৪) সংগঠনটির সভাপতি আলহাজ্ব সোহেল আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক শিবলী সাদিক খান স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলা হয়, অতিউৎসাহী এক পুলিশ কর্মকর্তা নগরীর চিহ্নিত সুদ কারবারী, বহু মামলার আসামি আয়েশা আক্তার লিজাকে বাদী বানিয়ে সাংবাদিক ছোটনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলা করিয়েছে। একইসঙ্গে তার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানি সংক্রান্ত আরেকটি মিথ্যা মামলা রুজু করে এর বাদী বানানো হয়েছে চিহ্নিত মামলাবাজ আরেক নারীকে। নিজেকে কথিত সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে

পুলিশের সোর্স হিসেবে দাপিয়ে বেড়ানো ওই নারীর নাম তাবাসসুম, তার বাসা রাজশাহী নগরীর চন্দ্রিমা থানার ভদ্রা জামালপুর মহল্লায়। তার দ্বারা বিভিন্ন সময় রাজশাহীর কর্মরত অন্তত আট জন সাংবাদিক মিথ্যা মামলায় সীমাহীন হয়রানি পোহাচ্ছেন বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিএমইউজে নেতৃবৃন্দ চিহ্নিত সুদখোর মহাজন ও বারবার যৌণ হয়রানির মামলা দায়েরকারী পেশাদার

মামলাবাজ দুই নারীর বিষয়ে তদন্তপূর্বক কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আরএমপি’র দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। তারা বলেন, অহেতুক মামলা, হামলা, চক্রান্ত চালিয়ে পেশাদার সাংবাদিকদের হয়রানি করার অপকর্ম সফল হতে দেওয়া হবে না। সাংবাদিকদের নিরাপত্তা বিধান ও পেশাগত দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে সব ধরনের সহায়তা নিশ্চিতকরণে বিএমইউজে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলতে সব সময় প্রস্তুত রয়েছে। আগামি সাত কর্ম দিবসের মধ্যে হয়রানিমূলক মামলার তৎপরতা বন্ধ করা না হলে অত্র সংগঠন রাজশাহীতে প্রতিবাদ সভা, মানববন্ধনসহ আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করতে বাধ্য হবে।

বান্দরবানের পর্যটন বিকাশের লক্ষ্যে গণমাধ্যমকে একযোগে কাজ করার আহ্বান -আপেল মাহমুদ “অভিভাবকহীন সন্তানদের থেকে রাষ্ট্রও যেন মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে” রাজশাহীতে এটিএন বাংলার সাংবাদিক সুজাউদ্দিন ছোটন বিরুদ্ধে হয়রানী মূলক মামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ গোহালকাঠীর রাস্তার বেহাল দশা; দেখার কেউ নেই কোটা বৈষাম্যের বিরুদ্ধে সিলেটে শিক্ষার্থীদের ১ দফা আন্দোলন সাংবাদিক জুয়েল খন্দকারের বিরুদ্ধে কাউন্সিলর বাবুর মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে প্রতিবাদ সভা ময়মনসিংহে জলাবদ্ধতার কারণে বন্ধ হওয়ার পথে সাইফুল ফিলিং স্টেশন; সিটি কর্পোরেশনের দৃষ্টি আকর্ষণ ময়মনসিংহের বোররচর ইউনিয়নে চলছে রমরমা জুয়া খেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ জরুরী দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশে সড়কের শাহজাদার হুমকি ধামকির মোকাবিলা করবে সাংবাদিক সমাজ শেরপুরে পুলিশের এএসআই এর অঢেল সম্পদের পাহাড় আদালতের নির্দেশনায় তদন্ত করছে দুদক সাংবাদিকতায় দায়বোধের সীমানা এবং উইদাউট বর্ডার রাঙামাটি ছাত্রলীগের কমিটিতে অছাত্র বিবাহিত চাকরিজীবী টেন্ডারবাজ নিয়ে নতুন কমিটি গঠন ময়মনসিংহে মাদক মামলায় জামিনে এসে হাবিসহ দুই যুবকের রমরমা ইয়াবা ব্যবসা লুটপাট আর টাকা পাচারে কারা এগিয়ে “পারলে তারা গণমাধ্যমেরও কবর রচনা করতে চান” ময়মনসিংহের শুভ হত্যার মামলার ৬ আসামীর জামিন না মঞ্জুর করেছেন আদালত সিএমপি কমিশনার উপ-পুলিশ মহাপরিদর্শক সাইফুল ইসলাম যোগদান করলেন সাংবাদিকদের বিতর্কিত করায় লাকীর বিরুদ্ধে এক হাজার কোটি টাকার মানহানী মামলার ঘোষণা- বিএমইউজে শেরপুরে পাহাড়ী ঢলে ৩ উপজেলার বাঁধ ভেঙ্গে কমপক্ষে অর্ধশত গ্রাম পানিবন্দি বিএমইউজে’র ফেনী জেলা কমিটির সভাপতি সাঈদ খান সাধারণ সম্পাদক মাসুম বিল্লাহ ভূঁইয়া লায়লা কানিজ লাকী’র বক্তব্যে বিএমউজে’র নিন্দা; প্রতিবাদ সভা মানববন্ধনের ডাক লাকী‘র বেদবাক্যে অন্ধ বিশ্বাসীরা সাংবাদিকদের বিতর্কিত করতে বড়ই উৎসাহী বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ইউনিয়ন নওগাঁ জেলার সভাপতি খোরশেদ সম্পাদক হাবিব নির্বাচিত গোয়াইনঘাটে শ্যাম কালা ও রয়েলের নেতৃত্বে চলছে সীমান্তে চোরাচালান ব্যবসা গফরগাঁওয়ে বাঁশঝাড়ে কিশোরী প্রেমিকা ধর্ষণ প্রেমিককে গ্রেপ্তার মহানবী (সা.)-এর ঈদের প্রবর্তন ও বিদায় হজ্জের ভাষণ ছাগলকান্ডে আলোচিত মতিউরকে সরিয়ে যাদের স্থলাভিষিক্ত করা হয়েছে বাঙালির প্রতিটি অর্জনে আওয়ামী লীগ ওতপ্রোতভাবে জড়িত -শেখ হাসিনা ময়মনসিংহে নারীকে ধর্ষণের পর হত্যা আসামী গ্রেপ্তার; রহস্য উদঘাটনে কোতোয়ালী পুলিশ ছাগলই বিশাল সম্পত্তির ইতিবৃত্ত বের করে দিল রাজস্ব কর্মকর্তা মতিউর রহমানের